কেমন হচ্ছে ঢাকা টেস্টের একাদশ

0
4396
Print Friendly, PDF & Email

ক্রীড়া ডেস্ক : রাত পোহালেই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ১১ বছর পর টেস্ট খেলতে নামবে বাংলাদেশ। এর আগে একটাই জল্পনা-কল্পনা, ঢাকা টেস্টের একাদশে কারা থাকছেন? টিম কম্বিনেশন কেমন হবে? কয়জন পেসার, কয়জন স্পিনার খেলবে? চায়ের কাপে চুমুক দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রশ্নগুলো নিয়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। কারণ ক্রিকেটের আগ্রহ এখন আকাশচুম্বি।

টেস্ট দলপতি মুশফিকুর রহিম বলেছেন, ‘টিম ম্যানেজমেন্ট সেরা কম্বিনেশন ঠিক করবে। আশা করছি, আমাদের সেরা ক্রিকেটারদের নিয়ে আমরা মাঠে নামতে পারব।’

সেরা কম্বিনেশনে কি মুমিনুল হক থাকবেন? মুশফিকুর রহিমকে সরাসরি করা হয়েছিল প্রশ্নটি। টাইগার দলপতি সরাসরি কিছু বলেননি। তবে মুমিনুলের ওপর নিজের অগাধ আস্থার কথা জানিয়েছেন, ‘তিন নম্বরে আমাদের যে সেরা, সে সুযোগ পেলেও দারুণ কিছু করবে। কারণ গত কয়েক বছর ধরে সে ভালো খেলে এসেছে।’

তিন নম্বরে টিম ম্যানেজমেন্টের প্রথম পছন্দ ইমরুল কায়েস। যতটুকু জানা গেছে, ইমরুল কায়েসই তিন নম্বরে খেলবেন। কিন্তু তামিমের সঙ্গী থাকা ইমরুল তিনে পথ হারিয়ে খুঁজছেন। ওপেনিংয়ে তার পায়ের নিচে পেয়েছিলেন খুঁটি। কিন্তু তিনে তার পারফরম্যান্স তলানিতে।

ইমরুলকে নিয়ে মুশফিক বলেছেন, ‘ওর জন্য খারাপ লাগে আসলে। নয় বছর খেলার পর এখনো খাপ খাইয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছে। আমি বলব ও একটু দুর্ভাগা। অনেক সময় টিম কম্বিনেশন বা পরিস্থিতির কারণে পরিবর্তন আনতে হয়। তবে সে অসাধারণ খেলোয়াড়।’

একাদশে অনুমিতভাবেই চলে আসবেন পরীক্ষিত পারফরমাররা। মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে রয়েছেন তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, সাকিব আল হাসান, সাব্বির রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান। দুই পেসার নিয়ে খেললে দলে আসবেন শফিউল ইসলাম। সুযোগ পেতে পারেন নাসির হোসেনও। যতুটুক জানা গেছে, মুশফিকুর রহিম কিপিং করবেন। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়ে ৫ ডিসমিসাল করেছিলেন মুশফিক। এজন্য একাদশের বাইরে থাকতে হবে লিটন কুমার দাসকে।

মুশফিক কিপিং করে চারেই ব্যাটিং করবেন। টিম ম্যানেজমেন্টের ইচ্ছায় চারে ব্যাটিংয়ে নামবেন টেস্ট দলপতি। এরপরই খেলবেন সাকিব। দুজনের ব্যাটিং অর্ডার নিয়ে মুশফিক বলেছেন, ‘সাকিবের মতো একজন বিশ্বমানের অলরাউন্ডার আছে, যে কি না আমাদের একজন বাড়তি বোলার বা ব্যাটসম্যান খেলানোর নির্ভরতা দিতে পারে। ২০-৩০ ওভার বোলিংয়ের পর ওকে ওপরে খেলানো কঠিন। আমাদের ইচ্ছা আছে, সেরা ব্যাটসম্যানকে ওপরে খেলানোর, কিন্তু ওয়ার্কলোডও মাথায় রাখতে হবে। আমার বিষয়টা, টানা কিপিংয়ের পর টপ অর্ডারে খেলা কঠিন। সেজন্য টিম ম্যানেজমেন্টের ইচ্ছায় পরেই ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত।’

শেয়ার করুন