শরীয়তপুরে পদ্মার স্রোতে পন্টুনের রশি ছিঁড়ে ৩ লঞ্চ ডুবি

0
1686
Print Friendly, PDF & Email

ডেস্ক নিউজ : শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার ওয়াপদা ঘাটে নোঙর করে রাখা তিনটি লঞ্চ পন্টুনের রশি ছিঁড়ে পদ্মায় ডুবে গেছে।

সোমবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ৩ লঞ্চে থাকা বেশ কয়েকজন নিখোঁজ রয়েছেন। লঞ্চ তিনটি হলো, মৌচাক-৪, মহানগরী, নড়িয়া-১।

ওয়াপদা লঞ্চঘাটের ইজারাদার মোতাহার হোসেন জানান, সকালে হঠাৎ করে ভাঙন ও স্রোতের টানে ঘাট থেকে পন্টুন বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তখন পন্টুনে পাঁচটি লঞ্চ নোঙর করা ছিল। তার মধ্যে তিনটি লঞ্চ রশি ছিঁড়ে তলিয়ে গেছে।

লঞ্চের স্টাফরা জানান, রোববার রাতে সদরঘাট থেকে শরীয়তপুরে আসা লঞ্চ এমভি মৌচাক-৪, নারায়ণগঞ্জ থেকে আসা এমভি নড়িয়া-২ ও মহানগর নামের তিনটি লঞ্চ নড়িয়ার ওয়াপদা ঘাটে ভোরে নোঙর করে। যাত্রী নামিয়ে পল্টুনের পাশে একটি বাঁশ ঝাড়ে বেঁধে লঞ্চের স্টাফ ও কিছুসংখ্যক যাত্রী ঘুমিয়ে পড়েন।

এরপর ভোর আনুমানিক সাড়ে ৫টার দিকে পদ্মার তীব্র স্রোতে পাড় ধসে বাঁশের ঝাড়সহ লঞ্চ তিনটি তলিয়ে যায়। অনেকেই সাঁতরে তীরে উঠলেও লঞ্চে থাকা এক শিশুসহ অন্তত ২৫ জন নিখোঁজ রয়েছেন বলে জানা গেছে।

ডুবে যাওয়া তিনটি লঞ্চের মধ্যে মৌচাক নামের লঞ্চটির সন্ধান দূরবর্তী দুলারচরে পাওয়া গেছে। বাকি দুটি লঞ্চের এখনও হদিস মেলেনি।
লঞ্চডুবির খবর পেয়ে নৌবাহিনীর একটি দল খুলনা থেকে শরীয়তপুরের উদ্দেশে রওনা দিয়েছে বলেও জানা গেছে। পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জ থেকে উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয় ভোরে শরীয়তপুরের উদ্দেশে রওনা হয়েছে। ঢাকা ও মাওয়া থেকে ফায়ার সার্ভিসের দুটি দল এসে উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছে। তবে নদীতে প্রবল ঢেউয়ের সঙ্গে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে উদ্ধার তৎপরতা ব্যাহত হচ্ছে।
লঞ্চডুবির খবর পেয়ে হাজার হাজার মানুষ ও নিখোঁজদের স্বজনেরা নদীপাড়ে ভিড় করেছেন।

নড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আসলামউদ্দীন জানান, প্রচণ্ড স্রোতের কারণে পন্টুনের রশি ছিঁড়ে নোঙর করে রাখা তিনটি লঞ্চ ডুবে যায়। এই তিনটি লঞ্চে ১৫-২০ জন কর্মী ছিলেন। তাদের মধ্যে কয়েকজন তীরে উঠতে সক্ষম হয়েছে। ঘটনার পর ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা উদ্ধার কাজ শুরু করেছেন।

এছাড়া ঢাকা থেকে বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বলেও জানান তিনি।

শেয়ার করুন