গাজীপুর সিটির অধিকাংশ রাস্তা নাজেহাল : দুর্ভোগে নগরবাসী

0
1639
Print Friendly, PDF & Email

গাজীপুর প্রতিনিধি : গাজীপুর মহানগরের অধিকাংশ সড়কগুলো ভারী যানবাহনের চাপ সামলাতে না পেরে অবস্থা নাজেহাল। শিল্প এলাকা গাজীপুর মহানগরের আভ্যন্তরীন সড়কে ভারী যানবাহন চলাচল করায় সড়কগুলো দেবে গিয়ে মানুষের ভোগান্তি চরমে। খানাখন্দে ভরা সড়কে বালু ভর্তি ভারী ড্রাম ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, ট্যাংকলরী সহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচলে বেহাল সড়কে মানুষের ভোগান্তির শেষ নেই। ভাঙ্গাচোরা রাস্তায় এখন ছোট যানবাহন চলাচলে অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। এ নিয়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

সিটির বিভিন্ন ওয়ার্ডের সড়ক ঘুরে দেখা যায়, এ রাস্তা দিয়ে দিবা রাত্রিতে ১০ চাকা ও ৬ চাকার শত শত ভারী যানবাহন চলাচলের কারণে রাস্তা দেবে কার্পেটিং সরে সড়কে গর্ত হয়ে যাচ্ছে। স্থানীয় লোকজনদের অভিযোগ মহল্লার ভেতরের হালকা রাস্তাগুলো দিয়ে ভারী যানবাহন চলাচল করায় দ্রুত নষ্ট হয়ে যাচ্ছে সিটির অধিকাংশ আঞ্চলিক সড়ক।

খোঁজ নিতে গিয়ে দেখা যায়, নগরের গুরুত্বপূর্ণ পূবাইল সড়ক, হাড়িনাল সড়ক, ধীরাশ্রম সড়ক, কলাবাজার-মার্কাস সড়ক, শিমুলতলী-সালনা সড়কসহ নগরের বিভিন্ন সড়ক খানাখন্দে ভরা। বেহাল এই সড়কগুলোতে মানুষ ও যানবাহন চলাচল যাতে বিঘ্ন না ঘটে সেই জন্য সিটি কর্পোরেশন স্থানে স্থানে ইটা বিছিয়ে সাময়িক মেরামত করছে। এসব বেহাল সড়কের চিত্র দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মানুষ নানা রকম মন্তব্য করছেন।
এতে স্থানীয় লোকজনের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। ওইসব এলাকার সাধারণ মানুষ ভোগান্তি লাগবে সিটি প্রশাসনকে নজরধারী বাড়াতে তাগাদা দিচ্ছে।
৪নভেম্বর শনিবার দুপুরে শহরের ভূরুলিয়া সড়কে কথা হয় অটোরিক্সা চালক তৈয়ব মিয়ার সাথে। তিনি বলেন, রাস্তা গর্ত আর খানাখন্দে ভরা, গাড়ী চালাতে সমস্যা হয়। আবার দ্রুত চালাতে গেলে উল্টে যায়।
সালনা-শিমুলতলী সড়কে কথা হয় রিক্সা চালক মনির হোসেনের সাথে, তিনি বলেন, এই সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো: আকবর হোসেন জানান, এবার বৃষ্টি বেশি হয়েছে আর ডিজাইন অনুযায়ী নির্মিত রাস্তায় ওভারলোড গাড়ী বেশি চলাচলের কারনে রাস্তাগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আবার কিছু রাস্তায় ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকার কারণে পানি জমে রাস্তা নষ্ট হচ্ছে। ভাঙ্গা রাস্তায় ইটা বিছিয়ে গাড়ী চলাচল স্বাভাবিক রাখাছি।
গাজীপুরস্থ ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে সাবেক বিভাগীয় প্রধান প্রকৌশলী মো: নুরুজ্জামান মনে করেন, নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানের নৈতিক দায়িত্ব মানসম্পন্ন নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করা এবং কাজের মান নিশ্চিত করা। একই সাথে দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠানের উচিত নির্মাণ কাজের সঠিক তদারকি করা। এতে জনসাধারনের ভোগান্তি একটু কম হতো।

শেয়ার করুন