কালিয়াকৈরে অত্যাচার, নির্যাতন ও প্রান নাশের হুমকির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

0
1122
Print Friendly, PDF & Email

কালিয়াকৈর প্রতিনিধি : গাজীপুরের কালিয়াকৈরে স্থানীয় আটাবহ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এম.এ আলীম ও তার সহযোগীদের অত্যাচার, নির্যাতন ও প্রাননাশের হুমকির প্রতিবাদে দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করেছে ওই ইউনিয়নের সেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ন আহবায়ক ও ভুক্তভোগী শাহরিয়ার সুজন ও তার পরিবার। চেয়ারম্যানের হুমকিতে এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছেন ভুক্তভোগী ও তার পরিবারের লোকজন।

সংবাদ সম্মেলনে সুজন ভোক্তভোগি বুলবুল জানায়, সম্প্রতি উপজেলার বাড়ইপাড়া-মহরাবহ সড়কের ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া একটি স্ট্যাটাস নিয়ে ওই সাবেক চেয়ারম্যান আলীমের সঙ্গে তাদের বিরুধের সৃষ্টি হয়। পরে ওই সাবেক চেয়ারম্যান ও তার সহযোগীরা সেচ্ছাসেবকলীগের নেতা সুজনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা করে। এসময় তাকে প্রাননাশের হুমকি দেন তারা। এক পর্যায়ে সাবেক ওই চেয়ারম্যান কালিয়াকৈর থানার উপ-পরিদর্শক আতিকুর রহমান রাসেরকে দিয়ে থানায় নিয়ে আসে ভোক্তভোগী সুজনকে। পরে তাকে থানায় আটকিয়ে রেখে মামলার ভয় দেখিয়ে ভোক্তভোগীর মার কাছ থেকে তার ছেলেকে ছেড়ে দেয়ার কথা বলে কয়েকটি সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেয় ওই সাবেক চেয়ারম্যান। এর পর রাত ৯টার দিকে সুজনকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

অপর ভুক্তভোগী বুলবুলকে গাজীপুরের এসপি’র নাম ভাঙ্গিয়ে একটি মামলার নাম কেটে দেওয়ার কথা বলে ২০ হাজার টাকা দাবি করে ওই চেয়ারম্যানের লোকজন। পরে বাধ্য হয়েই বুলবুল তাদের ১০ হাজার টাকা দিয়ে দেন। কিন্তু এতেও তিনি রেহায় পাননি। সেচ্ছাসেবকলীগের এই তরুন নেতা ও ভোক্তভোগি বুলবুল নিরুপায় হয়ে বিষয়গুলো গাজীপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) মহোদয়কে অবহতি করলে সে ভোক্তভোগিকে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দিতে বলেন। ভোক্তভোগি লিখিত অভিযোগ দিলে পুলিশ সুপার অভিযোগ পত্রে সুপারিশ করে তাদের সঠিক বিচারের জন্য কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) নিকট পাঠানো হয়।

গত ২২ সেপ্টেম্বর পুলিশ সুপারের স্বাক্ষরিত অভিযোগ পত্রটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নিকট জমা দেওয়া হলেও কালিয়াকৈর থানা পুলিশ এখনো কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলেও জানান তিনি।

সুজন আরও জানায়, গাজীপুর পুলিশ সুপরের নিকট অভিযোগ দেওয়ার কথা জানার পর আরও ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং দলবল নিয়ে ভোক্তভোগির বাড়ীতে গিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগাল ও প্রাননাশের হুমকি দিয়ে আসে। এর পর থেকে চেয়ারম্যানের হুমকিতে ভুক্তভোগী ও তার পরিবারের লোকজন এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বলেও জানান।

শেয়ার করুন